logo
শ্রমিক থেকে শ্রেষ্ঠত্বের দুয়ারে

অভাব অনটনে অনেকের ক্যারিয়া হয়ে যায় শেষ। কেউ কেউ শুরুই করতে পারেন না স্বপ্নের পথের ছুটে চলা। তাঁর মধ্যে ব্যাতিক্রম আছেন কেউ কেউ। মে দিবসে জানব তাদের কথা…

 

ফ্রাঙ্ক রিবেরিঃ 

ফ্রান্সের এক দরিদ্র পরিবারে জন্ম রিবেরির। বাবা ছিলেন নির্মাণকাজের শ্রমিক। দুই বছর বয়সে এক গাড়ি দুর্ঘটনার ফলে রিবেরি মুখে ক্ষতের দাগ পড়ে যায় যেটা আর যায় নি। পরে সেটাই নাকি বেশ উৎসাহিত করেছিল রিবেরিকে। পরে অভাব অনটনের সংসার চালানোর স্বার্থে বাবার সাথে গিয়ে শ্রমিকের কাজ করতে হয়েছিল রিবেরিকেও। সেই রিবেরিই পরে ফুটবলার হয়েছেন, পেশাদার ফুটবলে নাম লিখিয়ে তারকাও বনেছেন। বায়ার্ন মিউনিখেই কাটিয়েছেন নিজের ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বেশি সময়। জিতেছেন ৯ টি বুন্দেসলিগা, ৬ টি পোকাল কাপ, ১ টি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, ১ টি ইউয়েফা সুপার কাপ আর ১ টি ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপের শিরোপা। ফ্রান্সের হয়ে ২০০৬ বিশ্বকাপে হয়েছিলেন রানার্স-আপ।

 

ribery

 

এলেক্সিস সানচেজঃ

চিলিয়ান এই ফুটবলার জন্মগ্রহণ করেছিলেন দরিদ্র এক পরিবারে। পরিবার সামলানোর জন্য কাজ করতে হয়েছিল গাড়ির গ্যারেজে। বুটজোড়া কেনার সামর্থ্যও ছিল না একটা সময়। গাড়ি পরিষ্কার করা সেই সানচেজই এখন ফুটবলার হয়েছেন। পেশাদার ক্যারিয়ারে বার্সেলোনা, আর্সেনাল, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ঘুরে এখন আছেন ইন্টার মিলানে। জিতেছেন ১ টি লালিগা, ১ টি কোপা ডেল রে, ২ টি সুপারকোপা, ১ টি ইউয়েফা সুপার কাপ, ১ টি ক্লাব বিশ্বকাপ,  ২ টি এফএ কাপ আর একটা কমিউনিটি শিল্ড। চিলিকে জিতিয়েছেন ২ টা কোপা আমেরিকার শিরোপাও।

 

video

 

অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়াঃ

আর্জেন্টিনার এক ছোট্ট শহরে ডি মারিয়ার জন্ম। ডি মারিয়ার পরিবারের অবস্থা ছিল একেবারেই নাজুক। বাবা-মা দুইজনকেই কাজ করতে হতো কয়লাখনিতে। ১০ বছর বয়সে ডি মারিয়াকেও কাজ শুরু করতে হয় সেখানে, সাথে তার বোনও। ভাঙ্গাপ্রায় একটা ঘরে থাকতে হতো তাদেরকে। কয়লাখনিতে কাজ করা সেই শ্রমিক ডি মারিয়াই আজকের ফুটবলার ডি মারিয়া। রিয়াল মাদ্রিদ আর পিএসজিতেই কাটিয়েছেন ক্যারিয়ারের উল্লেখযোগ্য সময়। মাঝে এক মৌসুম ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে কাটালেও মানিয়ে নিতে পারেন নি। ক্যারিয়ারে জিতেছেন ১ টি লালিগা, ১ টি সুপারকোপা, ২ টি কোপা ডেল রে, ১ টি চ্যাম্পিয়ন্স লীগ, ১ টি ইউয়েফা সুপার কাপ, ৪ টি ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের শিরোপা। 

 

di-maria

 

দানি আলভেজঃ 

ব্রাজিলের বাহিয়া রাজ্যের শহর জুয়াজেইরোতে জন্মগ্রহণ করেন দানি আলভেজ। আলভেজের বাবা ছিলেন কৃষক, নিয়মিত মাঠে গিয়ে কাজ করতে হতো তাকে। ছোট্ট আলভেজকেও কাজ করতে হতো বাবার সঙ্গে। ভোর ৪ টায় ঘুম থেকে উঠে বাবার সঙ্গে মাঠে যেতে হতো আলভেজকে, মাঝে মাঝে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা থাকা সত্ত্বেও কাজ করতে হতো। আলভেজকে ঘুমাতে হতো কনক্রিটের বিছানায়, তার পরেও আলভেজ হাসিমুখে মেনে নিয়েছেন সব কষ্ট। কৃষক বাবাকে সাহায্য করা সেই দানি আলভেজই পরে নাম লিখিয়েছেন পেশাদার ফুটবলে। সেভিয়া আর বার্সেলোনাতেই কাটিয়েছেন ক্যারিয়ারের বেশিরভাগ সময়। এরপর জুভেন্টাস, পিএসজি ঘুরে এখন আছেন সাও পাওলোতে। সেভিয়াতে ৫ টা আর বার্সেলোনায় ২৩ টা ট্রফি জিতেছেন, পিএসজিতে জিতেছেন ৬ টা। যার মধ্যে আছে বার্সার হয়ে তিনটা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শিরোপা। দেশ ব্রাজিলের হয়ে ২ টা কোপা আমেরিকা আর ২ টা কনফেডারেশনস কাপ মিলিয়ে মোট শিরোপা জিতেছেন ৪ টা।

 

video